1. [email protected] : jakir ub24 : jakir ub24
  2. [email protected] : shohag : shohag
  3. [email protected] : sk eleyas : sk eleyas
  4. [email protected] : ub24 001 : ub24 001
  5. [email protected] : updatebarta24 :
ভেঙ্গে যাচ্ছে জাতির মেরুদণ্ড, গ্রামীণ শিক্ষার্থীরাই ভুগছে বেশি - UpdateBarta24
রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ০২:৫৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ডিমলায় করোনা পরিস্থিতিতে জেলা পরিষদের ত্রান সহায়তা শেরপুরে গারো পাহাড়ে রাত পোহালেই গৃহ-হীনদের স্বপ্নপূরণ শেরপুরে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবকে বিদায়ী সংবর্ধনা সোনাগাজীতে প্রবাসীর জমি দখলের পায়তারা করছে চরচান্দিয়া আ’লীগ নেতা সেলিম দু’ দশকের ইতিহাসের ধারা অব্যহত, জার্মানির কাছে আবারো হারলো পর্তুগাল ব্রহ্মরাজপুরে ‘মা’ ফাউন্ডেশন এক যুগপূর্তি উপলক্ষ কর্মসূচি পালন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কলকাতা হাইকোর্টের নোটিশ রাষ্ট্রীয় উন্নয়নে গণমাধ্যমের ভূমিকা অতিবৃষ্টির কারনে শ্যামনগরের পদ্মপুকুর ইউনিয়ন প্লাবিত কোপায় প্রথম জয়ের স্বাদ মেসিদের

ভেঙ্গে যাচ্ছে জাতির মেরুদণ্ড, গ্রামীণ শিক্ষার্থীরাই ভুগছে বেশি

এএসএম নাজমুল হক সায়েম
  • Update Time : সোমবার, ৭ জুন, ২০২১
  • ৭৭ Time View

বাংলায় একটা প্রবাদ প্রচলিত আছে, ‘শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড’। হুম সত্যিই শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। কিন্তু আজ সেই মেরুদণ্ড ভেঙ্গে যাচ্ছে। বলা চলে,এখনই মেরুদণ্ড নুয়ে পড়েছে এবার ভাঙ্গার অপেক্ষা।

গত বছরের শুরুর দিক থেকে দেশের সর্বস্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণেই শিক্ষা ব্যাবস্থার এই বেহাল দশা। শুধু বাংলাদেশেই নয় বিশ্বের প্রায় সব দেশেই একই অবস্থা চলমান। কিন্তু বাংলাদেশের মতো অনুন্নত দেশের জন্য এই চলমান অবস্থার ফলাফল খুবই ভয়াবহ। এবং ইতিমধ্যে ভয়াবহ রূপ নেয়া শুরু করে দিয়েছে।

এই বেহাল দশায় শহরের শিক্ষার্থীদের চাইতে গ্রামের শিক্ষার্থীরাই বেশি ভুক্তভোগী। আর পেছনে অনেকগুলো কারণ বৃদ্ধমান। প্রথমত গ্রামের মানুষের দারিদ্রতা।
এই বন্ধের সময়ে সরকার অনলাইন ও টিভির মাধ্যমে শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখার চেষ্টা করেছে। কিন্তু গ্রামীণ সমাজে দারিদ্রতার সাথে লড়াই করে বেছে থাকা ছাত্রের পরিবারের স্মার্ট ফোন,ডাটা সার্ভিস,ল্যাপটপ কিংবা টিভি কেনার সামর্থ ছিলো না।
দ্বিতীয়ত, গ্রামের কিছু স্বচ্ছল পরিবারে স্মার্ট ফোন থাকলেও পরিপূর্ণ ইন্টারনেট সংযোগ না থাকার কারনে তারাও অনলাইন ক্লাস থেকে বিরত থাকতে বাধ্য হচ্ছে।

গ্রামীণ শিক্ষার্থীদের পিছিয়ে পড়ার আরো একটি বড় কারন হচ্ছে অভিভাবকদের অসচেতনতা। গ্রামের অধিকাংশ অভিভাবকই সন্তানের শিক্ষার ক্ষেত্রে অসচেতন এবং উদাসীন। সন্তানের পড়াশুনার ব্যাপারে একজন অভিভাবকের যতটা তৎপর হওয়া প্রয়োজন তার সামান্যতম তৎপরতাও গ্রামীণ অনেক অভিভাবকের কাছে অনুপস্থিত। আর এই গা-ছাড়া ভাব সন্তানের মধ্যেও প্রতিফলিত হয়।
আর এসব কারনে গ্রামীণ শিক্ষার্থীরা পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে শিক্ষা থেকে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের এই সময়ে গ্রামীণ শিক্ষার্থীরা শুধু যে শিক্ষা থেকেই দূরে আছে তা কিন্তু না, দারিদ্রতার কারণে অনেক স্কুল ছাত্র যুক্ত হয়েছে কর্মসংস্থানে আর অনেক কলেজ ছাত্র পাড়ি দিয়েছে প্রবাস জীবনে৷ পাশাপাশি বেড়ে গেছে বাল্য বিবাহের প্রবণতাও। কলেজ ছাত্রীরাই বেশি আক্রান্ত হয়েছে এই বিবাহ ব্যাধীতে।অংকুরেই বিনষ্ট হয়ে গেছে কত স্বপ্ন।

এছাড়াও কর্মসংস্থানে না গিয়ে বাসস্থানে থাকা স্বচ্ছল পরিবারের শিক্ষার্থীরা জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন অপকর্মে। যুক্ত হচ্ছে তারা কিশোর গ্যাং এ। আশক্ত হয়ে পড়ছে জীবন বিনষ্টকারী মাদকে।
এরপরও কি বলা চলে না, শিক্ষা ব্যাবস্থা নুইয়ে পড়েছে,এখন ভাঙ্গার অপেক্ষায়?
এই সমস্যা গুলোর সমাধান কোথায়? শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দিলেই কি এর সমাধান হবে? প্রবাসগামী কিংবা দাম্পত্য জীবনে প্রবেশ করা শিক্ষার্থীরা কি আর ফিরে আসবে ক্লাসে?
জাতির মেরুদণ্ড যখন ভাঙ্গার অপেক্ষায় এখনও সরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার শক্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারে নি। ধপায় ধপায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখেও বার বার আশা দিয়ে নিরাশ করছে সরকার।
তবে কি জাতির মেরুদণ্ড ভেঙ্গে যাবে?

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Copyright © 2020 UpdateBarta24
Theme Customized BY Kh Raad ( Frilix Group )
Translate »
error: Content is protected !!